ব্রেকিং নিউজঃ

হোয়াইট হাউসের পথে

অনলাইন ডেস্কঃ

  • প্রকাশিত: শনিবার, ৭ নভেম্বর ২০২০, ০৮:২০
  • ৩১

হোয়াইট হাউসের পথে বাইডেন। পরিসংখ্যান বলছে, তিন দশকের স্বপ্ন পূরণ হতে চলেছে তার। যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে উত্তেজনাকর প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে শেষ হাসিটা তিনিই হাসবেন। টানা তিনদিনের শ্বাসরুদ্ধকর অবস্থা থেকে মুক্তির পথে মার্কিনিরাও। বিশ্ব অবাক হয়ে প্রত্যক্ষ করছে একটি গণতান্ত্রিক নির্বাচন। কতটা তীব্র হতে পারে গণতান্ত্রিক একটি নির্বাচন। অভিযোগ-পাল্টা অভিযোগ যা-ই করা হোক না কেন, এমন নির্বাচন বিশ্ববাসীকে একটিই বার্তা দেয়। তা হলো নির্বাচনে প্রতিটি নাগরিকের ভোটাধিকার প্রয়োগের সুযোগ থাকতে হয়।
আর সেজন্যই সর্বশেষ সুইংস্টেটগুলোতে পিছিয়ে থেকেও জো বাইডেন বার বার দাবি তুলতে থাকেন ‘এভরি ভোট শুড বি কাউন্টেড’। অর্থাৎ প্রতিটি ভোট গণনা করতে হবে। ৩রা নভেম্বর নির্বাচনের পর তিনদিন পেরিয়ে যাওয়ার পরও যখন নির্বাচনের ফল পাওয়া যাচ্ছিল না, তখন স্বাভাবিকভাবেই উত্তেজনা, উদ্বেগ দেখা দেয় চারদিকে। ফক্স নিউজের রিপোর্ট অনুযায়ী ইলেক্টোরাল কলেজ ভোটে জো বাইডেন ২৬৪ তে দাঁড়িয়ে। ট্রাম্প ২১৪। এখানে এসেই আকস্মিকভাবে থমকে দাঁড়ায় নির্বাচনের ফল। জো বাইডেনের প্রয়োজন আর মাত্র ৬টি ইলেক্টোরাল কলেজ ভোট। ট্রাম্পের প্রয়োজন ৫৬ ভোট। এমন অবস্থা চলে দীর্ঘ সময়। এ সময় মূল যুদ্ধ শুরু হয় সুইংস্টেট নেভাদা, পেনসিলভ্যানিয়া, জর্জিয়া ও নর্থ ক্যারোলাইনায়। নেভাদায় অল্প ব্যবধানে এগিয়ে ছিলেন বাইডেন। তবে সেখানে যে তিনি জিতবেন এমনটা নিশ্চিত ছিলনা। শুরু হয় বিশ্লেষণ। বলা হয়, এখানে তিনি জিতলেই পেয়ে যাবেন এ রাজ্যের মোট ৬টি ইলেক্টোরাল কলেজ ভোট। ফলে তিনি পৌঁছে যাবেন ম্যাজিক নাম্বার ২৭০-এ। অন্যদিকে সম্ভাবনা উঁকি দিতে থাকে জর্জিয়া থেকে। সেখানে পিছিয়ে থাকা বাইডেন ক্রমশ লিড নিতে থাকেন। শুক্রবার দুপুর নাগাদ তিনি ট্রাম্পের চেয়ে ৪৫০ ভোটে পিছিয়ে ছিলেন এ রাজ্যে। কিন্তু দুপুর তিনটার দিকে ট্রাম্পকে টপকে যান বাইডেন। তিনি এক হাজারের মতো ভোটে এগিয়ে যান। সঙ্গে সঙ্গে বিশ্ব মিডিয়ার সংবাদ শিরোনাম পাল্টে যেতে থাকে। বাইডেনের গতিতে ‘মোমেন্টাম’ সৃষ্টি হয়েছে বলে মন্তব্য করা হয়। কোন কোন মাধ্যম লিখে ফেলে ‘জর্জিয়ায় অল্প ব্যবধানে এগিয়ে বাইডেন, পথ করে নিলেন হোয়াইট হাউসের’। সেই জর্জিয়াতেই তিনি বিজয়ের হাসি হাসবেন এমনটা যেন সময়ের ব্যাপার। এখানে আছে ১৬টি ইলেক্টোরাল কলেজ ভোট। ২৬৪ এর সঙ্গে তা যুক্ত হয়ে দাঁড়ায় ২৮০। যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হতে একজন প্রার্থীর প্রয়োজন ২৭০টি ইলেক্টোরাল কলেজ ভোট।
নির্বাচনে জনগণের মত মেনে নেয়ার পরিবর্তে ভোট কারচুপি, ভোট চুরির অভিযোগ তোলেন ট্রাম্প। তবে সব মিডিয়াই তার এমন দাবিকে ‘ফলস্‌লি’ বলে দাবি করে। তিনি বৃহস্পতিবার হোয়াইট হাউসে দাবি করেন ডেমোক্রেটরা ভোটে কারচুপির চেষ্টা করছে। তার এ বক্তব্য তিনটি টেলিভিশন চ্যানেল সরাসরি সম্প্রচার বন্ধ করে দেয়। উপস্থাপক জানিয়ে দেন, ট্রাম্পের এ বক্তব্য সংশোধন করতে হবে। এ ছাড়া তিনি ভোটে কারচুপির মিথ্যা অভিযোগে মামলা করেন কয়েকটি রাজ্যে। তার মধ্যে জর্জিয়া ও মিশিগানে আইনি লড়াইয়ে তিনি হেরে যান। আদালত রায়ে বলে, ভোট কারচুপির কোনো প্রমাণ নেই। তাই ওই মামলা খারিজ করে দেয় আদালত। তবে ট্রাম্প টিম নেভাদায় অনিয়মের অভিযোগে মামলা করে। বৃহস্পতিবার ফিলাডেলফিয়াতে ভোট গণনা বন্ধের জন্য জরুরি আবেদন করে ট্রাম্প টিম। কিন্তু তাদের সেই আবেদনও প্রত্যাখ্যান করেন একজন ফেডারেল জজ।
ওদিকে, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে মাথা ঠাণ্ডা রাখার জন্য বৃহস্পতিবার আহ্বান জানিয়েছে সুইডেনের জলবায়ু বিষয়ক অধিকারকর্মী গ্রেটা থার্নবার্গ। অন্যদিকে নির্বাচনের ফল ঘোষণার আগে পর্যন্ত নির্বাচন নিয়ে উভয় পক্ষকে ধৈর্য্য ধরার আহ্বান জানিয়েছেন জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী হেইকো মাস। তিনি উত্তেজনা বৃদ্ধি করাতে দায়িত্বহীনের কাজ বলে মন্তব্য করেন।

অন্যকে জানাতে শেয়ার করুন

আরও পড়ুন