আজ || মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর ২০২২
শিরোনাম :
  তালায় ৮ দলীয় ফুটবল টুর্নামেন্টে সৈকত একাডেমি চ্যাম্পিয়ন       তালায় বাল্যবিয়ে প্রতিরোধ বিষয়ক সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত       সাতক্ষীরায় সেবাপ্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের সাথে কনসালটেশন ম্যাপিং সভা       শ্যামনগরে ঝুঁকিপূর্ণ শিশুশ্রম নিরসন প্রকল্পের মুক্ত আলোচনা       শ্যামনগরে একে ফজলুল হক এমসিএ কলেজে সুধী সমাবেশ       শ্যামনগর উপজেলা অনলাইন নিউজ ক্লাবের কমিটি গঠন, সভাপতি মিলন, সম্পাদক বাবুল       নীতি-আদর্শের কারনে সাংবাদিকরা যে সম্মানিত হতে পারে সুভাষ চৌধুরী তার অনন্য উদাহরণ –মনজুরুল আহসান বুলবুল       সাতক্ষীরায় জেলা কৃষকলীগের তৃণমূলের মতামত কে উপেক্ষা করে কমিটি ঘোষনার প্রতিবাদে জেলা কৃষকলীগের অধিকাংশ কাউন্সিলরদের সংবাদ সম্মেলন       বঙ্গবন্ধুর মাজার জিয়ারত ও শ্রদ্ধা নিবেদন করল সাতক্ষীরা জেলা পরিষদ       পদ্মপুকুরে মত বিনিময় সভা অনুষ্ঠিত    
 


সুন্দরবনে মাছ ধরা নিষিদ্ধ, মানবিক বিপর্যয়ে জেলেরা

এম রুহুল আমীন, খুলনা থেকে।।
সম্প্রতি সুন্দরবনে চর পাটা ও ঝাঁকি জাল দিয়ে মাছ ধরায় নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।
বলা হয়েছে, সুন্দরবনের বিভিন্ন খালে বিষ দিয়ে মাছ শিকার রোধ এবং মাছের নিরাপদ প্রজনন ও সংরক্ষণ করতেই এই নিষেধাজ্ঞা।
পশ্চিম সুন্দরবনের খুলনা রেঞ্জের সহকারী বন সংরক্ষক মো. আবু সালেহ এ তথ্য জানিয়েছেন।
এদিকে, করোনায় ক্ষতিগ্রস্থ জেলে বাওয়ালীরা নিরাপদে সুন্দরবনে মাছ ধরতে পারলেও সেটি বন্ধ থাকায় তারা পড়েছে মানবিক বিপর্যয়ে। অবিলম্বে পারমিট চালু করার দাবি জানিয়েছে সংশ্লিষ্টরা।
তবে নিষেধাজ্ঞার বিষয় জানার পর থেকে জেলেদের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। তারা আশায় বুক বেঁধে বসে আছে, যে কোন মুহূর্তে পারমিট চালু হবে।
মৎস্য ব্যবসায়ী জামাল মোড়ল জানান, মানবিক বিষয়টি বিবেচনা করে পারমিট জরুরি ভিত্তিতে চালু করা প্রয়োজন।
সুন্দরবন সংলগ্ন কয়রা উপজেলার উত্তর বেদকাশি ইউনিয়নের পাথরখালী গ্রামের জেলে কামরুল ইসলাম বলেন, ‘সুন্দরবনে বিষ দিয়ে মাছ ধরে খারাপ লোকেরা, আমরা বন বিভাগ থেকে অনুমতি নিয়ে মাছ ধরি পেটের দায়ে। এটা করেই আমাদের সংসার চলে। শুনছি আর মাছ ধরতে পারব না, এখন তো বেঁচে থাকাই দায়।’
সুন্দরবনের বিভিন্ন খালে মাছ ধরে পরিবারের জীবিকা চালান এমন আরও অনেকেই বলেন, ‘ফরেস্ট অফিস থেকে পাশ পারমিট নিয়ে ১২ মাসই নদীতে মাছ ধরি। বর্তমানে দুই গোন মাছ ধরা বন্ধ রয়েছে। আগামীতে আরও বেশ কিছু দিন মাছ ধরা বন্ধ থাকলে কী করে খাদ্য জুটবে, কীভাবে সংসার চলবে তা জানা নেই।’
সুন্দরবনে মাছ ধরে হাজার হাজার জেলে পরিবার জীবিকা নির্ভর করে। পাশ পারমিট বন্ধ থাকায় তারা মনবেতর জীবন যাপন করছে। এ সময় তারা সরকারের কাছে পাশপারমিট চালু রাখার দাবি জানান।
কয়রা উপজেলার সুন্দরবনের মৎস্য ব্যবসায়ী আবু সাঈদ মোল্যা জানান, সম্প্রতি বন বিভাগ থেকে পাটা ও ঝাঁকি জালের পারমিট বন্ধ করা হয়েছে। পাটা ও ঝাঁকি জাল দিয়ে মাছ ধরার সময় কোন জেলে বিষ প্রয়োগ করে মাছ ধরেনা। মূলত পাটা জাল দিয়ে সাদা মাছ ধরা হয়। বন বিভাগের নিয়ম মেনেই জেলেরা পাটা ও ঝাঁকি জাল দিয়ে মাছ ধরে থাকে।
সুন্দরবন পশ্চিম বন বিভাগের (ডিএফও) মো. বশিরুল-আল মামুন জানান, পাটা ও ঝাঁকি জালের পারমিট চালুর বিষয়টি বিবেচনায় রয়েছে।


Top