ব্রেকিং নিউজঃ

সাতক্ষীরায় বিকাশ হ্যাকার ও প্রতারক গোলাম রব্বানী বিশ্বাসের বিরুদ্ধে তদন্তপূর্বক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের দাবিতে এক বৃদ্ধের সংবাদ সম্মেলন

নিজস্ব প্রতিনিধি:

  • প্রকাশিত: বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০, ১৭:৫৮
  • ৯৭

সাতক্ষীরায় একাধিক মামলাার আসামী, বিকাশ ঞ্যাকার ও প্রতারক গোলাম রব্বানী বিশ্বাসের কবল থেকে গার্মেন্টস কর্মী ছেলে রক্ষার দাবি জানিয়েছেন এক বৃদ্ধ পিতা।

বুধবার সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের আব্দুল মোতালেব মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে এই দাবি জানান, তালা উপজেলার শিবপুর গ্রামের মৃত মনির উদ্দীন বিশ্বাসের ছেলে মোঃ নুরুল ইসলাম বিশ্বাস (৬৫)।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, আমার বড় ছেলে দিদারুল ইসলাম প্রায় ১৫ বছর ধরে গাজীপুর জেলার কালিয়াকৈ থানার “ইন্টার স্টপ” নামের একটি গার্মেন্টস এ চাকুরি করে। গত ছয়মাস আগে করোকালিন সময়ে আমার মেঝো বোনের ছেলে খুলনার বটিয়াঘাটা থানার গাওঘরা গ্রামের আব্দুল হালিম বিশ্বাসের ছেলে গোলাম রব্বানী বিশ্বাস ও তার স্ত্রী মিম কালিয়াকৈ আমার ছেলে দিদারুলের ভাড়া বাসায় গিয়ে উঠে। স্বরল বিশ্বাসে আমার ছেলে তাকে একটি বাসা ও একটি দোকান ভাড়া নিয়ে দেয়। রব্বানী এলাকায় নতুন হওয়ায় দোকান ঘরের চুক্তিপত্র হয় আমার ছেরে দিদারুলের নামে। রব্বানী ওই দোকানে বিকাশ, রকেট ও মোবাইল রিচার্র্জ বিভিন্ন ব্যবসা শুরু করে। গতমাসে আমার ছেলের নামে করা দোকানের ডিড জমা দিয়ে সে কালিয়াকৈ’র এনজিও সংস্থা সি.এস.এস থেকে ৫০ হাজার টাকা নেয়। এছাড়া আমার ছেলের পরিচিতিকে কাজে লাগিয়ে রব্বানী এলাকার স্বর্ণের ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দোকান থেকে প্রায় ৩০ হাজার টাকার মালামাল বাকী নেয়। গত ১ অক্টোবর সকাল ১০টার দিকে রকেট অফিসের স্টাফের সাথে প্রতারনা করে ২ লাখ ৭৫ হাজার টাকা নিয়ে (রকেট এজেন্ট নং-০১৯৬৫-১৩১৩১৩) দোকান খোলা রেখে ভাড়া বাসার সমস্ত জিনিসপত্র নিয়ে রব্বানী উধাও হয়ে যায়।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, আমাকে ও আমার ছেলে ফাঁসানোর জন্য পরিকল্পিতভাবে রব্বানী এই কাজ করেছে। রব্বানীর ভাই পলাশ, গাওঘরা গ্রামের মৃত আব্বাস আলী বিশ্বাসের ছেলে সিপার বিশ্বাস ও আব্দুল হালিম বিশ্বাস এই ষড়যন্ত্রের সাথে জড়িত রয়েছে। পরেরদিন সকালে রকেট অফিস কর্তৃপক্ষসহ অন্যান্য পাওনাদাররা এসে টাকার জন্য আমার ছেলের উপর চাপ সৃষ্টি করলে কারখানার কর্তৃপক্ষ তাকে হেফাজতে রাখে। বিষয়টি জানতে পেরে আমি প্রতারক গোলাম রব্বানীনহ অন্যদের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করে ব্যার্থ হই। পরে আমার ছেলে বিষয়টি গাজিপুরের কালিয়াকৈর থানার ওসিকে জানালে তিনি ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দেন।

নুরুল ইসলাম বিশ্বাস আরো বলেন, প্রতারক রব্বানীর দুই মাস আগে আমার কাছ থেকে ২ লাখ ৮০ হাজার টাকা ধার নিয়ে ১ লাখ ৪০ হাজার টাকা পরিশোধ করেছে। বাকী টাকা ফেরত চাইলে আমাকে খুন জখমের হুমকি দিচ্ছে। বিষয়টি ভগ্নিপতি আব্দুল হালিমকে জানালে তিনি টাকা পরিশোধের আশ্বাস দিয়ে এখন ফোন বন্ধ রেখেছেন।

রব্বানী বিকাশের নম্বর হ্যাক করে এজেন্ট ও সাধারণ মানুষের কাছ থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়ে বহু মানুষকে নিঃশ্ব করেছে। তার এই অপকর্মের মোবাইল নং গুলোর মধ্যে, ০১৯১১-১১৭৬১১, ০১৯৪৭ -০০৭০০৭, ০১৯৬৫-১৩১৩১৩, ০১৭২১-৪২২৩৪৭, ০১৯৮৬-৯৬৯৬৯৬, ০১৯২২-৭৭৮৮৯৯, ০১৯২১-৩০০৩০০, ০১৯৮৪-৪২৪২৪২, ০১৯৩৮-৭৭৩৭৭৩ ও ০১৯২৪-৩৫২৬২১। রব্বানীর নামে খুলনা, সাতক্ষীরা ও ঢাকাসহ বিভিন্ন থানায় প্রতারানর অভিযোগে একাধিক মামলা রয়েছে। তিনি বিকাশ হ্যাকার ও প্রতারক গোলাম রব্বানী বিশ্বাসের বিরুদ্ধে তদন্তপূর্বক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণে সাতক্ষীরা পুলিশ সুপারসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

অন্যকে জানাতে শেয়ার করুন

আরও পড়ুন