আজ || সোমবার, ০৪ জুলাই ২০২২
শিরোনাম :
 

জমিদাতার বাড়ীতে বাজী নিক্ষেপ অত:পর হামলায় আহত ৬


সাতক্ষীরার কলারোয়ায় মসজিদে ঈদের নামাজ আদায়ে ১২ যুবকের বাধা

সাতক্ষীরার কলারোয়ায় মসজিদে ঈদের নামাজ আদায় করতে দিলো না ১২ যুবক। এ ঘটনার প্রতিবাদ করায় ৬জন আহত হয়েছে। গুরুত্বর জখম অবস্থায় ২জনকে কলারোয়া সরকারী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সৃষ্ঠ ঘটনায় কলারোয়া থানায় ১২জনের নাম উল্লেখ করে একটি অভিযোগ দায়ের হয়েছে। ২৬মে মঙ্গলবার সকালে উপজেলার হেলাতলা ইউনিয়নের জাফরপুর গ্রামের কৃষক আব্দুর রহিম জানান, জাফরপুর গ্রামে ৫ওয়াক্ত নামাজের জন্য তিনি মসজিদের জায়গা দিয়েছেন। বর্তমানে ওই মসজিদ কমিটিতে জমিদাতা হিসাবে রয়েছেন। দীর্ঘ দিন ধরে এনিয়ে ওই গ্রামের সোহরাব উদ্দীন,আমির হোসেন, কবিরুল ইসলাম, আবু রায়হান, আবুল হোসেন, আলী হোসেন, জাহিদ হোসেন, মোক্তার আলী, আজহারুল ইসলাম, জাহান আলী, সোহাগ ও ইমরানের সাথে বিরোধ চলে আসছে। ঈদের দিন মুছল্লিগন ঈদের নামাজ আদায়ের জন্য একত্রিত হলে তারা দলবদ্ধ হয়ে নামাজ আদায়ে বাধা গ্রস্থ করে। বাধ্য হয়ে মুছল্লিগন পার্শ্ববর্তী এলাকায় গিয়ে  ঈদের নামাজ আদায় করে। এমতাবস্থায় বেলা সাড়ে ১০টার দিকে ওই যুবকরা দলবদ্ধ হয়ে কৃষক আব্দুর রহিমের বাড়ীতে ভারতীয় বাজি ছুড়ি মারে। এর প্রতিবাদ করাতে তারা ক্ষিপ্ত  হয়ে কৃষক আব্দুর রহিমের স্ত্রী আতিমন খাতুন (৪০) ও ছেলে শরিফুল ইসলাম (২৫) কে ধরে এলোপাতাড়ী ভাবে মারপিট করে নিলাফোলা জখম করে। এক পর্যায়ে তারা প্রাণ ভয়ে দৌড় দিয়ে ঘরের মধ্যে ঢুকে দরজা বন্ধ করে দেয়। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি। ওই যুবকরা দরজা ভেঙ্গে ঘরের মধ্যে প্রবেশ করে ব্যাপক ভাংচুর করে আতিমনের গলায় থাকা ১০ আনা ওজনের একটি স্বর্ণের চেইন ও নগদ ৩০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়। এক পর্যায়ে তাদের ডাক চিৎকারে পার্শ্ববর্তী এলাকার শহিদুল, আব্বাস আলী, জুলফিকার, আব্দুর রশিদ এগিয়ে এসে তাদের উদ্ধার করে। এ সময় তাদেরও অনুরুপ ভাবে মারপিট করা হয়।  ক্ষতিগ্রস্থ কৃষক আব্দুর রহিম বাদী হয়ে কলারোয়া থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানা পুলিশ ঘটনা স্থান পরিদর্শন করেছেন বলে জানা গেছে।


Top