আজ || সোমবার, ০৪ জুলাই ২০২২
শিরোনাম :
 

সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে অন্তর্জাতিক ভাষা দিবস পালন


মায়ের বাংলা ভাষা ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস সম্পর্কে সকলকে শিক্ষা নিতে হবে– রবি এমপি

ছবিতে ছবিতে বাংলাদেশ। রং তুলির আঁচড়ে মাতৃভূমি বাংলাদেশ। কন্ঠে কবি গুরু রবীন্দ্র নাথ ঠাকুর, কাজী নজরুলসহ বিভিন্ন বরেণ্য কবিদের একুশের কবিতা।
কচি কাঁচা শিশু কিশোররা এভাবেই তুলে ধরলো বাংলাদেশ, বাংলা ভাষা আর বাঙ্গালিকে। শ্রদ্ধা জানালো একুশের ভাষা শহিদদের। তাদের চোখে মুখে উদ্দীপ্যমান উচ্ছ্বাস। রং তুলি পেন্সিলের আগায় মাতৃভূমি বাংলাদেশ যেন নতুন রুপে নতুন রং-য়ে ধরা দিয়েছিলো।
২১ ফেব্রুয়ারি শুক্রবার সাতক্ষীরা প্রেসক্লাব মিলনায়তন শিশু কিশোরদের পদচারনায় এভাবেই মুখরিত হয়ে উঠেছিল। হাতে তাদের রং পেনসিল, ক্যানভাস। তাদের হাতে মাতৃভূমি ‘বাংলাদেশ’। হৃদয়ের কন্ঠে মায়ের ভাষা বাংলা।
মহান একুশের প্রহরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাব ডাক দিয়েছিল কোমলমতি শিশু কিশলয়কে। তারা শহিদ মিনার তৈরি করেছে। অংকন করেছে তারা কেমন দেখেছে একুশে ফেব্রুয়ারি পালন। কবিতা আবৃত্তি করে ১৯৫২ এর শহিদ সন্তানদের শ্রদ্ধা জানিয়েছে। সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে প্রতিবন্ধী শিশুসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী ও সাংবাদিক সদস্যদের সন্তানরা এসব প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহণ করে।
আর শিশুদের মাঝে প্রধান অতিথি সদর এমপি মীর মোস্তাক অহমেদ রবি, বিশেষ অতিথি সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ¦ আসাদুজ্জামান বাবু, রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি’র সেক্রেটারি আবু সায়ীদের উপস্থিতি অনুষ্ঠানটি আরো জাঁকযমকপূর্ণ ও সুন্দর হয়ে ওঠে। অংশগ্রহণকারী শিশুদের সাথে তাদের অভিভাবক ও সাংবাদিকদের পদচারণায় গোটা প্রেসক্লাব পরিনত হয় মিলন মেলায়।
বিকাল ৩ টায় সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সভাপতি জি এম নূর ইসলাম, সহ-সভাপতি কাজী শওকাত হোসেন ময়না, সাধারণ সম্পাদক মোজাফ্ফর রহমান, কার্য নির্বাহী কমিটির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক, মাতৃভাষা ও শহিদ দিবস উদযাপন কমিটির আহবায়ক এবিএম মোস্তাফিজুর রহমান, নির্বাহি সদস্য রামকৃঞ্চ চক্রবর্তী, বীর মুক্তিযোদ্ধা কালিদাস রায়, অর্থ সম্পাদক মো: আবুল কালাম, সাংগঠনিক সম্পাদক আক্তারুজ্জামান বাচ্চু, সদস্য শহিদুল ইসলাম, ফারুক রহমান শিশুদের চিত্রাংকন ও কবিতা আবৃত্তি প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন। এ সময় বক্তরা বলেন জাতির ভবিষ্যত এই শিশুদের আমাদের শেকড়ের কথা জানাতে হবে। তাদেরকে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস শেখাতে হবে। বাঙ্গালি জাতির উত্থান, বাঙ্গালি জাতির উন্মেষ তাদের শিখাতে হবে। শিশুদের মন ও মননে গেঁথে দিতে হবে বাংলা বাঙ্গালি ও বাংলা ভাষা। তাদেরকে শিক্ষা দিতে হবে বাংলা ভাষাকে রাষ্ট্র ভাষা হিসাবে প্রতিষ্ঠিত করতে আবুল বরকত, আব্দুল জব্বার, রফিক উদ্দিন আহমেদ, আব্দুস সালাম ও শফিউর রহমান সহ যারা বুকের তাজা রক্ত ঢেলে দিয়েছিল তাদের দেশ প্রেমের কথা।
সন্ধ্যায় পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠানে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাব সভাপতি জি এম নুর ইসলামের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি সদর এমপি মীর মোস্তাক আহমেদ রবি প্রেসক্লাব কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, শিশুদের প্রতিযোগী হয়ে উঠতে হবে। তাদেরকে দেশ প্রেমে উদ্বুদ্ধ হতে হবে। মায়ের ভাষা বাংলা ভাষায় তাদের শিক্ষা গ্রহণ করতে হবে। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস সম্পর্কে শিক্ষা নিতে হবে।
তিনি বলেন, প্রতিবন্ধীরা আজ আর সমাজের বোঝা নয়। উপযুক্ত পরিবেশ ও সহায়তা পেলে তারাও ভালো কিছু করতে পারে। প্রতিবন্ধীরা লেখাপড়া শিখছে। অন্য সাধারণ বাচ্চাদের সাথে বিভিন্ন প্রতিযোগীতায় অংশ গ্রহণ করছে। এটি নিঃসন্দেহে একটি ভালো দিক।
তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নাতনী প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার কন্যা সায়মা ওয়াজেদ পুতুল প্রতবিন্ধীদের কলাণে কাজ করে যাচ্ছেন।
প্রেসক্লাব সদস্য এম রফিকের সঞ্চালনায় প্রেসক্লাবের হল রুমে দুই দফা পুরস্কার বিতরনী অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন সাধারণ সম্পাদক মোজাফফর রহমান, কবিতা আবৃত্তি প্রতিযোগিতার বিচারক কবি প্রভাষক মন্ময় মুনীর, স্বপ্না চক্রবর্তী ও কবি সাংবাদিক মোস্তাফিজুর রহমান উজ্জল। এ ছাড়া চিত্রাংকন প্রতিযোগিতার বিচারক মন্ডলী ছিলেন এম আর রিয়াসাত আলী, মোঃ হাসানুজ্জামান ও মোঃ মহিবুল্লাহ।
যারা পুরস্কৃত
প্রতিবন্ধী শিশুদের চিত্রাংকন প্রতিযোগিতায় ক গ্রুপে প্রথম মিলন, দ্বিতীয় ফাহিম, তৃতীয় সবুজ, খ গ্রুপে প্রথম ফয়সাল ইসলাম, দ্বিতীয় জুলেখা পারভিন, তৃতীয় মারিয়া। কবিতা আবৃত্তি প্রতিযোগিতায় ক গ্রুপে প্রথম সুমাইয়া খাতুন, দ্বিতীয় সাকিবুল হাসান, তৃতীয় সৌম্যদীপ সরকার, খ গ্রুপে প্রথম স্বর্গ মন্ডল, দ্বিতীয় আমানুর রহমান আকাশ, তৃতীয় যৌথভাবে মারিয়া খাতুন পিয়া সুলতানা।
সাধারণ শিশুদের চিত্রাংকন প্রতিযোগিতায় প্রথম টি আর জারিফ, দ্বিতীয় নাদিদ তাহসিন, তৃতীয় সাদমান রাব্বী, খ গ্রুপে প্রথম মৌমিতা হাসান সেজুতি, দ্বিতীয় জারিন তাসনিম খান, তৃতীয় যৌথভাবে লামিয়া মানহা ও সামিহা সিদ্দিকা। কবিতা আবৃত্তিতে ক গ্রুপে প্রথম দিয়া দাশ, দ্বিতীয় টি আর জারিফ, তৃতীয় অনিন্দিতা চক্রবর্তী, খ গ্রুপে প্রথম জেড আই তাহিয়াত, দ্বিতীয় যৌথভাবে জারিন তাসনিম ও শ্রেয়ান চক্রবর্তী, তৃতীয় সানজিদা। এছাড়া, প্রতিযোগীতায় অংশগ্রহণকারী সকল শিশুকে সান্তনা পুরস্কার দেওয়া হয়।


Top