আজ || মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর ২০২২
শিরোনাম :
  তালায় ৮ দলীয় ফুটবল টুর্নামেন্টে সৈকত একাডেমি চ্যাম্পিয়ন       তালায় বাল্যবিয়ে প্রতিরোধ বিষয়ক সমন্বয় সভা অনুষ্ঠিত       সাতক্ষীরায় সেবাপ্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের সাথে কনসালটেশন ম্যাপিং সভা       শ্যামনগরে ঝুঁকিপূর্ণ শিশুশ্রম নিরসন প্রকল্পের মুক্ত আলোচনা       শ্যামনগরে একে ফজলুল হক এমসিএ কলেজে সুধী সমাবেশ       শ্যামনগর উপজেলা অনলাইন নিউজ ক্লাবের কমিটি গঠন, সভাপতি মিলন, সম্পাদক বাবুল       নীতি-আদর্শের কারনে সাংবাদিকরা যে সম্মানিত হতে পারে সুভাষ চৌধুরী তার অনন্য উদাহরণ –মনজুরুল আহসান বুলবুল       সাতক্ষীরায় জেলা কৃষকলীগের তৃণমূলের মতামত কে উপেক্ষা করে কমিটি ঘোষনার প্রতিবাদে জেলা কৃষকলীগের অধিকাংশ কাউন্সিলরদের সংবাদ সম্মেলন       বঙ্গবন্ধুর মাজার জিয়ারত ও শ্রদ্ধা নিবেদন করল সাতক্ষীরা জেলা পরিষদ       পদ্মপুকুরে মত বিনিময় সভা অনুষ্ঠিত    
 


বৈশাখীভাতার অর্থে গাজী মোমিন উদ্দীনের খাদ্য সহায়তা প্রদান

সাতক্ষীরা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক গাজী মোমিন উদ্দীন এর উদ্যোগে আজ সন্ধ্যায় করোনা মহামারীতে গরীব অসহায় ২০টি পরিবারের মধ্যে খাদ্য সহায়তা প্রদানের খবর পাওয়া গেছে।

সাতক্ষীরা জেলার তালা উপজেলার খলিলনগর ইউনিয়নের প্রসাদপুর গ্রামের মৃত মোঃ আকমান আলী গাজীর পুত্র গাজী মোমিন উদ্দীন বর্তমানে সাতক্ষীরা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক হিসেবে কর্মরত আছেন।

সারা বিশ্বব্যাপী করোনা মহামারীতে তিনি নিজ এলাকার প্রসাদপুর গ্রামের হতদরিদ্র ২০টি পরিবারের মধ্যে নিজের বৈশাখীভাতার অর্থে খাদ্য ও অর্থসহায়তা প্রদান করেছেন।

সাতক্ষীরায় কর্মস্থলে থাকার কারণে তালার খলিলনগর ইউনিয়নের স্বেচ্ছাসেবকদের সমন্বয়কারী দিপায়ন মন্ডল এই খাদ্য সহায়তা ২০টি পরিবারের বাড়িতে পৌছে দিয়েছেন।

আজ সন্ধ্যায় দিপায়ন মন্ডলসহ কয়েকজন স্বেচ্ছাসেবক এই কাজটি সম্পন্ন করেন। এ ব্যাপারে গাজী মোমিন উদ্দীন বলেন, ছাত্রজীবন থেকে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানোর অভ্যাস থেকেই এ কার্যক্রম। তাছাড়া মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যার যা আছে,তাই নিয়ে অসহায়দের পাশে দাঁড়ানোর আহবান জানিয়েছেন।

নিজের বৈশাখীভাতার টাকায় ২০টি পরিবারের মাঝে ৫ কেজি হারে চাউল ও কিছু অর্থ সাহায্য করার চেষ্টা করেছি। অন্যান্যদের এগিয়ে আসার অনুরোধ করেন তিনি। দরিদ্র পরিবারের বাড়িতে খাদ্যসহায়তা পৌছে দেওয়া দিপায়ন মন্ডল বলেন, গাজী মোমিন উদ্দীন ভাই আমাকে দায়িত্ব দিয়েছিলেন, আমি প্যাকেটজাত করে বাড়ি বাড়ি পৌছে দিয়েছি। আমাকে কাজে লাগানোর জন্য আমিও খুশি।


Top