বুথফেরত জরিপে তৃণমূলের ক্ষমতায় থাকার ইঙ্গিত

অনলাইন ডেস্ক :
  • প্রকাশিত: শুক্রবার, ৩০ এপ্রিল, ২০২১

ভারতের পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে গতকাল বৃহস্পতিবার। প্রায় দুই ?মাস ধরে আট দফায় এই ভোটগ্রহণ হয়েছে। গতকাল শেষ দফার ভোটগ্রহণে বিক্ষিপ্ত সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে। তৃণমূল কংগ্রেস, বিজেপি উভয় দলেরই বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন। এই দফায় ভোট পড়েছে ৭৬ শতাংশ। আগামী রবিবার ভোট গণনার পর ফল ঘোষণা করা হবে। এদিকে বেশ কয়েকটি বুথফেরত জরিপের পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির তৃণমূল কংগ্রেসই তৃতীয়বারের মতো ক্ষমতায় আসছে। তবে তাদের আসনসংখ্যা গতবারের চেয়ে কমছে। অন্যদিকে সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পেলেও আসনসংখ্যা বাড়ছে কেন্দ্রে ক্ষমতাসীন দল বিজেপির। জরিপ অনুযায়ী সিপিএম-কংগ্রেস জোট শেষ পর্যন্ত হয়তো সরকারের নির্ণায়ক শক্তি হয়ে উঠতে পারে।

বেলেঘাটায় তৃণমূল এবং বিজেপি সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। ট্যাংরায় গোবিন্দ খটিক এলাকায় লোকজনকে ছত্রভঙ্গ করতে কেন্দ্রীয় বাহিনী লাঠিচার্জ করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, কেন্দ্রীয় বাহিনী অকারণেই লাঠিচার্জ করে। মানিকতলা আসনের অন্তর্গত তেলেঙ্গাবাগানেও পুলিশ লাঠিচার্জ করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। মানিকতলার বিজেপি প্রার্থী কল্যাণ চৌবেকে ঘিরে বিক্ষোভ দেখান তৃণমূল কর্মী, সমর্থকরা। কলকাতায় এদিন ভোট দেন বিজেপি ঘনিষ্ঠ অভিনেতা মিঠুন চক্রবর্তী। ?

মুর্শিদাবাদের জলঙ্গির রায়পাড়া ঘোষপাড়ায় তৃণমূল বনাম সিপিএম সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে উভয় পক্ষের সাত জন জখম হয়েছেন। বোলপুর বিধানসভার ইলামবাজারে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।

বুথফেরত জরিপ

সি-ভোটারের জরিপে বলা হয়েছে—২৯৪ আসনবিশিষ্ট পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভায় তৃণমূল পেতে পারে ১৫২ থেকে ১৬৪ আসন, বিজেপি ১০৯ থেকে ১২১ এবং সিপিএম-কংগ্রেস জোট ১৪ থেকে ২৫টি আসন।

টাইমস নাউ-সি ভোটারের জরিপের ফল বলছে, তৃণমূল ১৫৮, বিজেপি ১১৫ এবং সিপিএম-কংগ্রেস জোট ১৯টি আসন পেতে পারে।

এনডিটিভির সমীক্ষা অনুযায়ী তৃণমূল ১৬৪ থেকে ১৭৪, বিজেপি ১০৫ থেকে ১১৫ এবং অন্যরা ১ থেকে ১৫ আসন পেতে পারে।

রিপাবলিকের বুথফেরত জরিপ অনুযায়ী হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হতে পারে। এক্ষেত্রে তৃণমূল পেতে পারে ১২৮ থেকে ১৪৮টি আসন। বিজেপি পেতে পারে ১৩৮ থেকে ১৪৮টি আসন। অন্যরা পেতে পারে ৬টি থেকে ৯টি আসন। অন্যদিকে জন কি বাতের সমীক্ষায় বিজেপি ১৬২ থেকে ১৮৫, তৃণমূল ১০৪ থেকে ১২১ এবং সিপিএম-কংগ্রেস জোট তিন থেকে ৯টি আসন।

২০১৬ সালের বিধানসভা নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেস ২১১, সিপিএম-কংগ্রেস জোট ৭৬ এবং বিজেপি তিনটি আসন পেয়েছিল। তবে লোকসভা নির্বাচনে চিত্র বদল হয়। ৪২ আসনের মধ্যে তৃণমূল ২২, বিজেপি ১৮ আসন পায়।

আসামে বেশ কিছু বুথফেরত জরিপ বলছে, ম্যাজিক ফিগারের চেয়ে সামান্য বেশি কিছু আসন পেয়ে ক্ষমতায় ফিরতে চলেছে বিজেপি। জাতীয় কংগ্রেসের জোট ক্ষমতা থেকে কিছুটা দূরেই থাকতে পারে। তামিলনাডুতে এনডিএ জোটের জন্য আশার আলো নেই। জাতীয় কংগ্রেসের জোটে থাকা ডিএমকে সেখানে দুই-তৃতীয়াংশ আসন পেয়ে ক্ষমতায় আসতে চলেছে। কেরালায় আবার ক্ষমতায় আসতে চলেছে সিপিএম নেতৃত্বাধীন এলডিএফ জোট। বিজেপির জন্য আশার আলো ইউনিয়ন টেরিটরি রাজ্য পন্ডিচেরি। সমীক্ষা বলছে, এই রাজ্য বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএর দখলে আসতে চলেছে।

অন্যকে জানাতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও পড়ুন