ব্রেকিং নিউজঃ

কপিলমুনি সহচরী বিদ্যামন্দিরের প্রয়াত: প্রধান শিক্ষক শেখ ইমাম উদ্দিনকে নিয়ে একজন ছাত্রের স্মৃতিচারণ

তালা নিউজ ডেক্স

  • প্রকাশিত: শুক্রবার, ১২ জুন ২০২০, ২১:০৭
  • ১৪১
লেখাটি খুলনা জেলার একাধিকবার শ্রেষ্ঠ বিদ্যাপীঠ কপিলমুনি সহচরী বিদ্যামন্দিরের ৭ম প্রধান শিক্ষক প্রয়াত জনাব শেখ ইমাম উদ্দিন কে নিয়ে স্মৃতিচারণ মূলক।
তাঁর প্রতিটি ছাত্রের হৃদয়ে এমন হাজারো সুপ্ত স্মৃতি বিদ্যমান, যা লিখে প্রকাশ করলে মহাকাব্যে রূপ নিবে।
প্রাত্যুষের সুখনিদ্রাটা কেবলি জাকিয়া আসিয়াছে এমন সময় বজ্রনাদ ঘঠিল, না আকাশ হইতে নহে, পিতার বজ্রকন্ঠ হইতে। এক লম্ফে উঠিয়া দেখি পিতৃদেব স্বয়ং সম্মুখে আবির্ভূত, দক্ষিণ হস্তে মাসাধিক পূর্বে প্রস্ফুটিত চারিটি মুরগির ছানা তারস্বরে তাহাদের মাতৃক্রোড় বিচ্যুতির প্রতিবাদ জানাইতেছে। আড় চোখে দেয়ালে অবিরাম ছুটিয়া চলা ঘড়িটির দিকে তাকাইয়া দেখিলাম, উহার বৃহৎ দণ্ডটি ১২ এবং ক্ষুদ্রটি ৬ নম্বর দাগের উপর পৌঁছাইতে বাহানা করিতেছে। হাকিয়া ডাকিয়া এই প্রত্যুষে নিদ্রা ভঙ্গের হেতু কী? তাহা জিজ্ঞাসিত হইবার পূর্বেই তিনি বলিলেন, “হেড স্যার অসুস্থ, আমি আর তোমার মা দেখতে গিয়েছিলাম, তুমি এখন গিয়ে দেখে আস আর এই মুরগির বাচ্চা গুলো দিয়ে আস।“ শুনিয়া আমার মাথায় বজ্রপাত ঘঠিল, উহা পিতার কন্ঠ হইতে নহে, আমার মস্তিষ্ক ধমনীর বেগে।
আমার পিতা যাঁহাকে হেডস্যার বলিয়া সম্বোধন করিলেন তিনি দক্ষিণ বাংলার বিদ্যাদুগ্ধ নিঃসরণী বিদ্যামাতা – কপিলমুনি সহচারী বিদ্যামন্দিরের ৭ম প্রধান শিক্ষক। তিনি আমার পিতা, মাতা, সকল পিতৃব্য ও মাতৃব্যগণেরও জ্ঞ্যানদেব ছিলেন । তাঁহার প্রতি আমার যতটা না প্রণয় ছিল তাঁহার অধিক ছিল ভয় আর ভক্তি । কিন্তু আমার পিতামাতার ভক্তির পরিমান নিন্মোক্ত ঘটনাগুলি পড়িয়া পাঠক নিজেই বুঝিতে সক্ষম হইবেন।
হেডস্যার যশোর শিক্ষা বোর্ডের ইংরেজি বিষয়ের নিয়মিত প্রধান পরীক্ষক ছিলেন, তাহার অনূদিত ও লিখিত বহু ইংরেজি ব্যাকরণ ও পাঠ্যবই ছিল। ১০ম শ্রেণির দুই পত্র ইংরেজি পড়াইতেন, যেহেতু তাহারা মাধ্যমিকের পরীক্ষার্থী তাই ইংরেজির গুরুদায়িত্বটা নিজেই লইয়া থাকিতেন।
আমি তখন ৭ম শ্রেণির ছাত্র, ইংরেজি শিক্ষকের অনুপস্থিতিতে তিনি কিছুদিন ক্লাসে আসিতেন। হাতের লেখা পড়িবার অযোগ্য হওয়ায়, আমাকে ইংরেজির ছোট ছাদের হাতের লেখা চর্চা করিবার আদেশ করিলেন। দুইদিন আমাকে দেখাইয়া দিলেন কিন্তু তৃতীয় দিবসেও একই ভুল করিলাম। মহাশয় ধৈর্যের বাঁধ বাঁধিয়া রাখিতে না পারিয়া সজোরে আমার কান বরাবর চপেটাঘাত কষিলেন। চপেটাঘাতের যন্ত্রণা লিখিয়া প্রকাশ করা সম্ভব নহে, পাঠকগণ এই পঙক্তিদ্বয় হইতে অনুমান করিয়া লইবেন“ কি যাতনা বিষে বুঝিবে সে কিসে, কভু আশীবিষে দংশেনি যারে”। কানের ব্যথ্যা আর অভিযোগের কথা, উভয় লইয়া বাটীতে পৌঁছাইয়া মাতার অনুকম্পা লাভের আশায় ব্যথার চারিগুণ ক্রন্দন করিয়া নালিশ জানাইলাম যে, আমার অতি লঘু অপরাধে এই গুরুদণ্ড নেহাত অন্যায় বৈ আর কিছুই নহে। এক্ষণে ইহার বিহিত ব্যবস্থা না করিলে আমি বিদ্যার্জনে ইতি টানিবো।
বেতের বাড়ি নহে, চপেটাঘাত ! ইহা শুনিয়া মাতা বড়ই আপ্লূত হইয়া পড়িলেন, “আহা তিনি যখন আমার হাড় বজ্জাত পুত্রের গাত্রে স্পর্শ করিলেন, নিশ্চয় এবার সে মানুষ হইবে, তাহাকে আর গরু, গাধা সহ অন্যান্য নিকৃষ্ট পশুর নামে ডাকিতে হইবে না।“ ইহা শুধু তিনি ভাবিলেনই না অস্পষ্ট স্বরে প্রকাশও করিলেন। কিন্তু হেডস্যারের বিরুদ্ধে অভিযোগ করার সাহস দেখিয়া তাহার মাতৃ স্নেহ উবিয়া গেল। রুষ্ট নেত্রে ব্যাঘ্রকন্ঠে সাবধান করিয়া কহিলেন ইহার পুনরাবৃত্তি ঘটিলে, রন্ধনশালায় আমার ভাগের চাউল আর পৌঁছাইবে না, শোবার ঘরেও তালা পড়িবে। মাতার এই বিমাতা সুলভ আচরণ দেখিয়া অনুকম্পা লাভের আসায় পিতার শরণাপন্ন হইলাম। সকল শুনিয়া বিলাতি চুরোটের ধোঁয়া ছাড়িয়া পিতৃদেব কহিলেন, “তাঁহার…… বেত্রাঘাতের কারণেই…… আজ আমি বি, এ ক্লাস পার করিতে পারিয়াছি, নিজ হাতে যখন তোমাকে আঘাত করিয়াছেন…… তখন তুমি আমাকে ছাড়াইয়া যাইবে নিশ্চয়।“ আমি ফোন করিয়া আমার শাস্তির হেতু জানিতে চাইবার আর্জি করিলে পিতা কহিল“ তাঁহাকে ফোন করিব আমি ? এত বড় স্পর্ধা আমার নাই, তাঁহার সম্মুখে দাঁড়াইলে এখনো আমার পদযুগল আড়ষ্ট হইয়া যায়।“
মহাশয় আমাকে কিঞ্চিৎ স্নেহ করিতেন, তখন মোবাইল ফোনের প্রচলন না থাকায় একদা তিনি আমার পিতাকে টেলিফোন করিয়া আমাকে প্রাত্যুষে তাঁহার বাসস্থানে উপস্থিত হইবার ফরমান জানাইলেন। পিতা রাত্রে আসিয়া উহা বলিলে সমস্থ রাত্র নিদ্রা দেবী আমার দুই নেত্র হইতে ছুটি লইয়া গেল। মহাশয়ের বাটীর সম্মুখে ঐ তিন খানা পরিপক্ক ইক্ষুর প্রতি যে লোলুপ দৃষ্টি দিয়াছিলাম, আর সুযোগ পাইলেই যে উহা হোস্টেলের গোপন কক্ষে লইয়া গিয়া চর্বণ করিব পরিকল্পনা করিয়াছিলাম। নিশ্চয় বেতের দু’ঘা বসাইয়া তাহা কারো নিকট হইতে ফাঁস করিয়া লইয়া উহাকে সাক্ষী মানিয়া, আমাকে বেতের অমৃত সেবনে আমন্ত্রণ জানাইয়াছেন। মফেজ (মফেজ উদ্দীন সরদার, বর্ষীয়ান শিক্ষক ) স্যারের ক্লাসে ব্লাক বোর্ডে পাঠ লেখার পরিবর্তে অপ্রাসঙ্গিক কথা লিখিয়া, হাস্যরস সৃষ্টি করার তথ্য ফাঁস হইয়াছে, পেয়ারা ভক্ষণ, ফুল উৎপাটন, বিদায় অনুষ্ঠান আয়োজনের চাঁদা লইয়া যে রাজভোগ খাইয়াছি, উহা নিশ্চয় বিষ্টু ময়রা ফাঁস করিয়া দিয়াছে।‘ মনে নানা ধরণের কূচিন্তা উপস্থিত হইল আর চোখের সম্মুখে মহশয়ের অগ্নি বিস্ফোরিত নেত্র আর চিরচেনা আড়াই হাত লম্বা শুঁকনো বেত খানি ভাসিয়া উঠিতে লাগিল। হঠাৎ পিতৃদেবের নিকট প্রশ্ন করিলাম – তুমি জিজ্ঞেস করোনি কেন , কি জন্য আমাকে ডাকিয়াছে ? “আমার এত দুঃসাহস নেই তাঁহার নিকট কৈফিয়ত তলব করার যে, কেন তোমাকে ডাকিয়াছে“ পিতার এই ৪৭ বছরে আসিয়াও মহাশয়ের প্রতি এত ভয় দেখিয়া আমার ভয় টা দ্বিগুণ বাড়িয়া গেল। উহা বাড়িয়া চতুর্গুণ হইল যখন প্রাত্যুষে বন্ধু ও সতীর্থ শামিম (এইচ এম শামীম আহমেদ, সিনিয়র সেকশন অফিসার, কপিলমুনি কলেজ, এস এস সি ৯৪) আসিয়া দরজা চাপড়াইয়া জানাইল যে তাহার বিরুদ্ধেও উক্ত সমন জারি হইয়াছে। ইহা শুনিয়া আর বুঝিতে বাকি রহিল না যে রাজভোগের তথ্য ফাঁস হইয়াছে, কারণ শামীমও উহার রস আস্বাদন করিয়াছিল। রস বাহির করিবার জন্য যে এই প্রাতঃনিমন্ত্রন, জানিয়া মোটা জিন্স প্যান্ট আর জাম্পার লাগাইয়া দূরু দূরু হৃদয়ে মহাশয়ের বাটীর সিংহদ্বারে আসিয়া হাজির হইলাম। ( সাধারণত আমরা হেডস্যারের বেতের বাড়ি থেকে রক্ষা পেতে মোটা জিন্স বা মোটা কাপড় পরতাম, কেউ ডাবল বা ট্রিপলও পরত)
মহাশয় হালকা ছাই রঙের কাশ্মিরি শাল গায়ে জড়াইয়া বারান্দায় বসিয়া তসবিহ জপিতেছিলেন, আমাদিগকে দেখিয়া শান্ত স্বরে কহিলেন “আয়”। কর্মকার তপ্ত লোহা জলে চুবাইলে যেমন পচ্‌ করিয়া শিতল হইয়া যায়, তেমনি এই দুই অক্ষরের ছোট্ট শব্দটি আমার দ্রুত কম্পিত হৃদয় স্পন্দন কে শিতল করিয়া শান্ত করিয়া দিল। বুঝিলাম ঘঠনা বেগতিক নহে। আমাদিগকে বসিবার স্থান চিহ্নিত করিয়া, সদ্য সমাপ্ত নির্বাচনী পরীক্ষার কিছু উত্তরপত্র আনিয়া উহার নাম্বারগুলো সঠিক ভাবে গুনিয়া লিখিবার নির্দেশ করিল। কোনভাবেই যেন কম বেশি না হয় এবং উহা মনুষ্য কেন, পক্ষিকুলও যেন না জানিতে পারে তাহা সতর্ক করিয়া দিল। কাজ শেষে সিংহের ন্যায় বুক ফুলাইয়া ফিরিয়া, মাতাকে রাজ্য জয়ের ইতিহাস শুনাইয়া নিজেক রাজা বানাইয়া তৃপ্ত হইলাম।
বসন্তের আগমনী ধ্বনি বাজিছে সমীরণে, চারিদিকে ঋতুরাজ বরণে সাজ সাজ রব । আম্রবোলের গন্ধে মৌ মৌ ধরণী । মুরগীর বাচ্চার চিউ চিউ ধ্বনির সাথে সমান বেগে পা চালাইয়া যখন স্কুল প্রাঙ্গণে পৌঁছাইলাম, দেখি একখানা সাদা রঙের মাইক্রবাস প্রশাসনিক ভবনের সম্মুখে দাঁড়াইয়া রহিয়াছে। উৎসুক জনতার ভিড় ঠেলিয়া গাড়ির নিকটে গিয়া দেখি হেডস্যারকে ধরাধরি করিয়া গাড়িতে তুলিতেছে। কেউ একজন বলিয়া উঠিল “স্যার এই স্ট্রোকে আপানার কিছু হবে না “স্যার চোখ খুলিয়া গাড়ির জানালা দিয়া বাহিরে তাকাইয়া শুধু দুইবার বলিল “আমার স্কুলটা দেখ“
“আমার স্কুলটা দেখ“ কথাটি আমার বুকে গিয়া বিঁধিল। পক্ষাঘাতগ্রস্থ মহাশয় এক কন্যা ও এক পুত্রের জনক । কন্যাটি সাতক্ষীরাতে তাঁহার শ্বশুরালয়ে থাকিয়া কলেজে ছাত্র পড়ায় আর পুত্রটি ঢাকায় অধ্যায়নরত ছিল, মহাশয় এই মুমূর্ষ অবস্থায় তাঁহার পুত্রকন্যার কোন কথা না বলিয়া শুধু স্কুলের কথা ভাবিলেন !
১৯৬২ সালে তিনি এই বিদ্যামন্দিরের প্রধান পুরোহিত হিসাবে যোগদান করিয়াছিলেন। শুনিয়াছি তখন একখানা মাত্র ভবন (প্রশাসনিক ভবন) ও অমৃতময়ী টেকনিক্যাল স্কুল (বর্তমান অমৃতময়ী মিলনায়তন) লইয়া এই বিদ্যা সরোবর দক্ষিণবাংলায় বিদ্যাবারি প্রবাহিত করিয়া আসিতেছিল। দীর্ঘ ৪০ বৎসরের কর্মকালে আপন সংসার ত্যাগ করিয়া তিনি এই বিদ্যামহিয়সীকে অপরূপ সৌন্দর্যে সাজাইয়াছিলেন, উহা একখানা মাধ্যমিক স্কুল হইলেও প্রকান্ড দুইখানা মাঠ, দুইখানা ছাত্রাবাস, সুসজ্জিত তিনখানা বৃহদাকার একাডেমিক ভবন, প্রধান শিক্ষকের বাস ভবন, পাঠাগার, শিক্ষক মিলনায়তন, সমৃদ্ধ বিজ্ঞানাগার (বিজ্ঞান ভবন), গোপন সংরক্ষণ কক্ষ, প্রধান শিক্ষকের সুসজ্জিত দপ্তর, সহকারী প্রধান শিক্ষকের দপ্তর, হিসাব শাখা, অত্যাধুনিক মিলনায়তন, পাতাল ছোয়া পুকুর, দৃষ্টিনন্দন শহীদমিনার আর স্কুল অধীনস্থ তিনখানা অত্যাধুনিক মার্কেট দেখিয়া দর্শনার্থী উহাকে আটোখাটো বিশ্ববিদ্যালয় বা বৃহৎ কোন মহাবিদ্যালয় বলিয়া ভুল করিতে পারেন বৈকি। মহাশয় আপন মনের মাধুরী মিশাইয়া ১ নং একাডেমিক ভবনের দোতলার দক্ষিণ পার্শ্বে একখানা অত্যাধুনিক অতিথিশালা সাজাইয়া ছিলেন। সরকারি যে কোন উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা স্কুল বা অত্র অঞ্চল ভ্রমণে আসিলে এই অতিথিশালার আতিথেয়তা গ্রহণ করিতেন। মাধ্যমিক পরীক্ষা চলাকালিন উপজেলা ম্যাজিস্ট্রেট, এ ডি সি সহ অন্যান্য কর্মকর্তাবৃন্দ এই অতিথিশালায় তাসরীফ রাখিতেন । মহাশয়ের সহধর্মিণী (প্রয়াত জাহেদা খাতুন, সহকারী প্রধান শিক্ষক, কপিলমুনি মেহেরুন্নেসা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ) নিজ হাতে তাঁহাদের জন্য খাদ্যদ্রব্যাদি প্রস্তুত করিতেন।
প্রশাসনিক ভবনের সম্মুখে দন্ডায়মান একজোড়া কৃষ্ণচুড়া আকাশে মাথা ঠেকাইয়া অহর্নিশি বিদ্যা দেবীর আরতি করিত । সে অপরূপ দৃশ্য চর্ম চক্ষুতে অবলোকন না করিয়া বিদ্যামন্দিরের প্রসাদ গ্রহণ করা বৃথা । সেই আরাধনা আজি শ্রান্ত হইয়াছে , কোন এক কুক্ষণে তাহাদের কর্তন করা হইয়াছে।
স্ত্রী-সন্তান থাকিতেও তাঁহাকে সংসারত্যাগী বলিয়া অন্যায় করিয়াছি – বলিয়া সমালোচকেরা সমালোচনা করিতে পারেন বৈকি। তাহাদের সমালোচনার দণ্ড হইতে রক্ষা পাইতে, মহাশয়ের সংসার ত্যাগের কিছু উদাহরণ নিম্নে পেশ করিলাম ।
সতীর্থ রফিক ( ব্রাক কর্মকর্তা, এস এম রফিকুল ইসলাম, এস এস সি-৯৪) আফজাল (ইউ সেফ কর্মকর্তা, আফজাল হোসেন, এস এস সি-৯৪) ছাত্রাবাসে থাকিয়া পড়াশুনা করিত, ছাত্রাবাসে অনাবাসিক ছাত্রদের যাতায়াতের সীমাবদ্ধতা ছিল। মাঝে মাঝে বিভিন্ন অপ্রয়োজনকে প্রয়োজন বানাইয়া তাহদের নিকট যাওয়া হইত। আমাদিগকে দেখিয়া উহাদের চোখ ছানা বড়া হইয়া উঠিত, শশব্যস্ত হইয়া চারিদিকে তাকাইয়া দেখিয়া ফিস ফিস করিয়া বলিত “এক্ষণ যা, হেডস্যার দেখলে কিন্তু আজ আর নিস্তার নাই, কাল রাত ১টার সময় টুটুল ভাইকে বাইরে পেয়ে যে মাইর দিছে !“ -রাত ১টা! ও বাবা,তা উনি ঘুমায় না? ঢোক গিলিয়া কহিল, “ঘুমাবে কখন উনার তো আর ঘর সংসার নেই, তাই সারা দিন আমাদের পিছনে লেগে থাকে, উনি বাড়ি নাই শুনে সে দিন গিয়েছিলাম ৯টা থেকে ১২টার শো সিনেমা দেখতে, ১২টার সময় বের হয়ে দেখি, উনি হলের দরজায় দাঁড়িয়ে আছে, তারপর যে কি হয়েছে সে আর না বলি“
এস এস সি পরীক্ষার পূর্বে প্রায়ই মহোদয়ের এই অমানবিক আচরণ পরিলক্ষিত হইত, তিনি রাত্র দ্বিপ্রহরে পিয়ন অথবা অমিও স্যার ( অমিও রঞ্জন দে, বিজ্ঞান বিভাগের অভিজ্ঞ শিক্ষক, হোস্টেলেই থাকতেন, স্কুলের বিভিন্ন প্রয়োজনে হেডস্যারকে সর্বাধিক সহযোগিতা করতেন, হেডস্যারের অবসরের পর কিছুদিন ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের দায়িত্বে ছিলেন, পরবর্তীতে কৃষ্ণকাঠি স্কুলের প্রধানশিক্ষের দায়িত্ব নেন) কে সঙ্গী করিয়া সিনেমা হল গেটে দণ্ডায়মান হইতেন। যদি কোন ছাত্র হল হইতে বাহির হইত তবে তাহার নাম লিখিয়া রাখিতেন এবং পরবর্তি স্কুল দিবসে, প্রশাসনিক ভবনের সম্মুখে তাহাদের আপিলের সুযোগ ছাড়াই বিচার কাজ সম্পন্ন করিয়া, বিচারক নিজেই শাস্তি প্রদান করিতেন। শাস্তি প্রদানের সময় সমস্ত স্কুল জানিতে পারিত যে, আজ মহশয়ের মস্তিষ্ক কিঞ্চিৎ উত্তপ্ত হইয়াছে। শাস্তি গ্রহণের পর, গ্রহীতারা যে পরীক্ষার পূর্বে চিত্তবিনোদনের নিমিত্তে আর কখনো সিনেমার টিকিট ক্রয়ে অর্থ সঞ্চয় করিবে না, তাহা কিন্তু পণ করিয়াই লইত।
মধ্যরাত অবদি তিনি স্কুল অফিসেই কাজ করিতেন এর ফাঁকে হোস্টেলে পায়চারী । ক্যাডেট কলেজে ভর্তির নিমিত্তে , অমিও স্যারের কাছে প্রাইভেট পড়িতে গিয়া প্রায়ই রাত্রে মহোদয়কে অন্ধকারে আবিস্কার করিয়া কম্পিত হৃদয়ে ভিন্ন পথ ধরিতাম । সকালে এক খানা ফুলের চারা বাছিয়া রাখিয়াছিলাম , রাত্রে প্রাইভেট পড়া শেষে উহা লইয়া যাইব । রাত্র ৯ টা, ফুলের চারা তুলিবার নিমিত্তে কেবল হাত বাড়াইয়াছি । হটাৎ আমার বদনে অনাকাঙ্খিত একখানা আলোক বর্ষন হইল , আর একখানা রক্ত হিম করা কণ্ঠস্বর বাজিয়া উঠিল “ কে ওখানে ? “ আমি , “ ওখানে কি ? “ কলম পড়ে গেছে , “ পেয়েছ ?” জ্বী , “এদিক দিয়ে যাও , ওদিকে অন্ধকার “ কোন দিকে অন্ধকার তাহা আর ঠাওর হইল না । বুকের ধকধকানি লইয়া স্কুল গেইট পার হইয়া রাস্তায় উঠিয়া দম ফেলিলাম ।
এক্স-টেনে অধ্যয়নকালে ক্লাস হইত মিলনায়তনে, একদা ক্লাসের জানালা দিয়া তাকাইয়া দেখি, মহাশয় সম্মুখের দ্বিতল ভবনের সানশেডে চড়িয়া বেত দিয়া দেওয়ালে আঘাত করিতেছেন। আশ্চর্য কান্ড, এই সানশেডে তো আমরাই ভাল ভাবে হাটিতে পারিব না, তাঁহার এই কর্মের হেতু কি? পরে জানিলাম রাজ মিস্ত্রীর কাজ তদারকি করিবার প্রয়াসে জনাবের এই আয়োজন। স্কুলের কাজে তিনি কাহাকেও ভরসা করিতে পারিতেন না।
৪.২২ একর (প্রায় ১৩ বিঘা) ব্যাপ্তির এই সৌন্দর্যধারিণী বিদ্যাপ্রাঙ্গণ ২৪ ঘন্টাই তাঁহার দুই নেত্রের গতিপথে থাকিত। বিশাল ফুল-ফলের সমারোহ ,বৃক্ষরাজি কিছুই তাহার চক্ষের অন্তরালে যাইত না। ছাত্রাবাস, মিলনায়তন, বিজ্ঞানাগার ও শৌচাগারের পাশ দিয়া প্রায় ১০০টি কাজী পেয়ারার গাছ রোপণ করিয়া তাহার পরিচর্যায় তদারকি করিতেন মহাশয় স্বয়ং। গাছগুলো যেমন হৃষ্টপুষ্ট হইল, তেমনি ডাঁসা পেয়ারাও ধরিল। গাছে গাছে রসালো পেয়ারা ঝুলিতে দেখিয়া, রসনা নিয়ন্ত্রন করিয়া শ্রেণিকক্ষে পাঠ লওয়া বড়ই অসম্ভব হইয়া উঠিতে লাগিল। কিন্তু উপায় তো নাই , উহার প্রতি নজর পড়িবা মাত্রই, আড়াই হাত লম্বা আর আধা ইঞ্চি ব্যাসার্ধের জালী বেতখানি ঠুসি হইয়া মুখে আটকাইয়া যাইত। এই ঠুসিই সাড়ে আটশত ছাত্রের হাত হইতে ঐ ডাঁসা পেয়ারা রক্ষা করিত বটে। একদা বিজ্ঞানাগারে অরবিন্দু স্যারের ( অরবিন্দু সরদার , বিজ্ঞান বিভাগের জ্যেষ্ঠ শিক্ষক, খুলনা জেলায় কয়েকবার শ্রেষ্ঠ গণিত শিক্ষকের তকমাধারী) জীববিজ্ঞান পাঠদান চলিতেছে। হঠাৎ ছাত্রাবাসের সিড়ির ধারে একটি টসটসে পেয়ারা নজরে আসিল। লোভ সামলাইতে না পারিয়া শামীমকে বলিলাম, ‘এই পেয়ারা আজি খাইতেই হইবে’ শুনিয়া তাহার কণ্ঠনালী বোধকরি শুকাইয়া উঠিল, সে আমাকে আড়াই হাত বেত আর শাস্তির স্বরূপ শুনাইয়া নিজ দায়িত্বে এই ভয়ংকার কর্ম করিবার উপদেশ দিয়া, নিজকে উহা হইতে বিরত রাখিবার অভিপ্রায় ব্যক্ত করিল। মূত্র বিসর্জনের ছল করিয়া বাহিরে আসিয়া, লোভিত ফলের দিকে হাত বাড়াইতেই সেই আড়াই হাত বেতের প্রতিচ্ছবি আর উহা ব্যবহারকারীর অগ্নিমূর্তি চোখের সম্মুখে ভাসিয়া উঠিল। তৎক্ষণাৎ নিজেকে সংবরণ করিলাম বটে কিন্তু রসনা তাহা শুনিল না। শেষমেশ না ছিড়িয়া ফল গাছে রাখিয়াই খাইতে আরম্ভ করিলাম। এক কামড় লইয়া কিছুদুর হাঁটিয়া আসিয়া আবার আর এক কামড় লইয়া আসিলাম। অর্ধেক শেষ করিয়া ক্লাসে গিয়া বসিলাম। শামীম উহা শুনিয়া, অবাক হইল কি ভয় পাইল তাহা বুঝিলাম না, কিন্তু এক ঘণ্টার মধ্যে উহা সমস্ত স্কুল রাষ্ট্র হইল। অতি উৎসাহিতরা উহা লইয়া গবেষণা করিতে বসিল। মহাশয় সঙ্গীয় কর্মচারী, কর্মকর্তা লইয়া ঘটনাস্থল পরিদর্শন করিয়া বৃদ্ধ মালীকে বিস্তর ধমকাইল এবং এই আধ খাওয়া জীবন্ত ঝুলন্ত ফলের রহস্য উদঘাটন না হইলে, যে তাহার চাকুরী চলিয়া যাইতে পারে তাহা পরিষ্কার বলিয়া দিল। ঐ অভিনব চোর ধরিবার জন্য বহু চেষ্টা করা হইল, পুরুস্কার ঘোষনা করা হইল কিন্তু দিনের আলোয় চলাচল যোগ্য কোন ভিনদেশী বাদুড় ছাড়া আর কাহাকেও সাব্যস্ত করা গেল না।
আমরা রত্নগর্ভা মাতার নাম শুনিয়া থাকি কিন্তু রত্নহস্ত পিতার নাম কি কখনো শুনিয়াছি? পাঠক ধৈর্যহারা না হইয়া নিম্নের প্রচ্ছদ কয়টি পড়িলেই হয়ত এক রত্নহস্ত পিতার পরিচয় পাইবেন।
মহাশয়ের ঐকান্তিকতায় এই বিদ্যা সরোবর যশোর শিক্ষা বোর্ডের স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠানগুলোর তালিকায় অনেক পূর্বেই নাম লিখাইয়াছিল। তাঁহার কর্মকালীন সময়ে বোর্ডের মেধা তালিকা সহ পাশের হার ও ছাত্র সংখ্যাও ছিল ঈর্ষণীয়। বিদ্যাদেবের হাতে গড়া রত্নগুলো দেশবিদেশে উচ্চ পদমর্যাদায় আসীন। তিনি শুধু বিদ্যা রত্নই আবিস্কার করেননি, তাঁহার হাতে তৈয়ারি হইয়াছিল দেশসেরা খেলোয়াড় আর জাতীয় স্বীকৃতি প্রাপ্ত স্কাউট দল। স্বর্ণকাপ আর রৌপ্যকাপের বিরাট আয়োজনের আন্তঃস্কুল ফুটবল টুর্নামেন্ট এই বিদ্যালয় ব্যাতিত, বাংলায় অন্য কোথাও হইতো বলিয়া আমার জানা নাই।
স্কাউট সদস্য হিসাবে পেট্রোল লিডার আব্দুল্লাহ আল মামুনের ( শেখ আব্দুল্লাহ আল মামুন, এস এস সি- ৯৩, লিডস কর্পোরেশনে এ জি এম পদে কর্মরত ) নেতৃত্বে ২বার উপজেলা সমাবেশ, ২বার জেলা সমাবেশ, একবার বিভাগীয় সমাবেশ এবং আমার নেতৃত্বে একবার বিভাগীয় সমাবেশে অংশগ্রহণ করিবার সৌভাগ্য এই অধমের হইয়াছিল। ৬বারের মধ্যে ৫বারই আমাদের দল শ্রেষ্ঠ স্কাউট দলের স্বীকৃতি পাইয়াছিল। চৌকস দলনেতা আবদুল্লাহ আল মামুন বিভাগ, জেলা ও উপজেলায়, সমাবেশ লিডার হিসাবে ৪ বার দায়িত্ব পালন করিয়াছিল এবং শ্রেষ্ঠ পেট্রলিডারের তকমাও পাইয়াছিল। এই সময় ৬০ জনের এক বিশাল স্কাউট দল ছিল স্কুলে এবং স্কাউটদের মান উন্নয়নে সাপ্তাহিক প্রশিক্ষন ও আলাদা ক্লাস ও হইত। মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী হওয়ায়, জনাব আমাদিগকে জাতীয় জাম্বুরীতে অংশগ্রহণ করিতে না দিলেও আমাদের পূর্বে অনেক দলই জাতীয় পর্যায়ে অংশগ্রহণ ও সুনাম অর্জন করিয়াছিল বৈকি।
হেডস্যারের লিখিত সেই জারিগানে আর সঞ্জয়ের (সঞ্জয় দাস, এস এস সি-৯৪) খোলের তালে নাচিয়া অনুপম’দা (ইঞ্জিনিয়ার অনুপম পাল,এস এস সি- ৯৩) ও আলতাফ হোসেন (শেখ আলতাফ হোসেন, এস এস সি-৯৭) তাবু জলসার বিচারকদের কুপোকাত করিয়া ফেলিতো।

“ঐ আল্লাহ, আল্লাহ বল বান্দা,
নবি কর সার……
নবির ও কালেমা পড়ে, হয়ে যাবি পার,
বিসমিল্লাহ বলিয়া আমার জারি করলাম শুরু,
নিদানের ভরসা, আল্লাহ, দয়া কর গুরু……
ঐ আহা রে এ এ এ এ এ এ এ এ এ এ এ
আজকের এই তাবু জলসার প্রধান অথিতি যিনি
লোকের মুখে মুখে তাঁহার গুনের কথা শুনি……”
স্কাউট সমাবেশে যাইবার পূর্বে জনাব সকলের স্বাস্থ্য ঠিক রাখার ও ভালোমানের খাবার খাওয়ার পরামর্শ দিয়া থাকিতেন। নিজ হাতে খাদ্য দ্রব্যাদি ক্রয় করিয়া তাহা প্যাকিং করিয়া দিতেন। কোনক্রমেই নিম্নমানের কিছু খাইতে দিতেন না।
এক উপজেলা সমাবেশের আয়োজন হইল আমাদের স্কুল মাঠে, চাউল, ডাউল আর তৈল ক্রয়ের জন্য সতীর্থ শরিফুলকে (মোঃ শরিফুল ইসলাম, এস এস সি-৯৪) দায়িত্ব দেওয়া হইল, শরিফুল আমাকেও সঙ্গে জড়াইল, ১০টাকা কমে ২নং শরিষার তৈল কিনিয়া বাকি টাকা দিয়া দুইজন রসগোল্লা গিলিলাম। রান্না করিবে লাভলু মামা ( শেখ রবিউল আওয়াল লাভলু, এস এস সি-৯৩) তাই তৈলের মান যাচাই নিয়া চিন্তা নাই, সে এই বিষয়ে অজ্ঞ। বিধাতা অপ্রসন্ন হইল, হেডস্যার আসিয়া বলিলেন, “রান্না করিয়া হাত পুড়াইবার প্রয়োজন কি? আমি এনায়েত ( মোঃ এনায়েতুল্লাহ, দপ্তরি) কে পাঠাইয়া দিতেছি সেই রান্না করিবে,” রান্না সমাপ্ত হইল, জনাব আসিলেন ছাত্ররা কি খাবার খাইতেছে তাহা দেখিবার জন্য। তরকারির কটু গন্ধের কারণ জানিতে এনায়েতকে ডাকা হইল, এনেয়েত জানাইল উহা তার রন্ধন শিল্পের ত্রূটি নহে, উহা খাঁটি তৈল না হইবার কারণ। অখাঁটি তৈলের ঘ্রাণে, মহাশয় তেলেবেগুনে জ্বলিয়া উঠিল, এবং তৈল বিক্রেতাকে এক্ষণে ঝুটি ধরিয়া তাঁহার সম্মুখে হাজির করিবার নির্দেশ হইল। শহিদুল (মোঃ শহিদুল, পিয়ন) ছুটিল তাঁহাকে ধরিতে আর শরিফুল ছুটিল আড়াই হাত বেতের নাগাল টুটিতে। আমি ভাবিলাম তৈল বিক্রেতা তো আর আমাকে চিনিবে না, রসগোল্লার রস যে কিছুমাত্র আমার রসনাকে তৃপ্ত করিয়াছে উহা অপ্রকাশিত রহিয়া যাইবে। চল্লিশোর্ধ সেই তৈল ব্যবসায়ী কোনোকালে এই বিদ্যালয়ে কিয়ৎকাল অধ্যয়ন করিয়াছিল। হেডস্যারের সম্মুখে আসিয়া উহার পদযুগোল কম্পিত হইতে লাগিল। কম্পিত কন্ঠে জানাইল যে, সে এই তৈল দেওয়ার অনিচ্ছা প্রকাশ করিয়াছিল কিন্তু ক্রেতা অর্থাভাব প্রকাশ করাতে সে দিয়াছিল। বহু সন্ধানের পরও ক্রেতাকে আর খুঁজিয়া পাওয়া হইল না। মহাশয় সবার উদ্দেশ্যে বলিলেন “স্কুলের কাজে এসে সব সময় ভালো খাদ্য খাবে, টাকা আমি দিব কিন্তু আমি চাই না আমার কোন ছেলে খাদ্যের কারণে অসুস্থ হোক “
বিভিন্ন প্রয়োজনে স্কুলে রাত্রিযাপন করিয়াছি, প্রতিবারই জনাব রাত্র দ্বিপ্রহরে আসিয়া হাজির হইতেন, দেখিতেন কে কোথায় ঘুমাইয়াছে, কার মাথায় বালিশ নাই, কালী মাতা হিন্দু হোটেল হইতে কে কি খাইয়াছে, (ফকির বাসা মোড়ের এই ভাতের হোটেলটি আমাদের জন্য সর্বদাই ফ্রি করা ছিল। স্কুলের যে কোন কাজে, অমিও স্যার এই খানেই আমাদের খাবার আয়োজন করত)
নির্বাচনী পরীক্ষার পর বনভোজনের আয়োজন করিলাম, জনাব নিষেধ করিলেন, সামনে মাধ্যমিক পরীক্ষা, এখন কোন দুর্ঘটনা ঘটিলে কি হইবে? শুনিলাম না, খুব জোর অনুরোধ করিয়া অনেক শর্ত মানিয়া তাঁহাকে রাজি করাইলাম, নির্দেশ হইল অমিও স্যারকে সঙ্গে নিতে, তাঁহাকে সঙ্গে নিলে যে বনভোজন বনবাসে পরিণত হইবে ইহা বুঝিয়া ও হেডস্যারকে সাত পাঁচ বুঝাইয়া জয়নাল স্যারকে (এস এম জয়নাল আবেদিন, অভিজ্ঞ গণিত শিক্ষক, এই বছরেই তিনি যোগদান করেছিলেন) সঙ্গী করিলাম। যাত্রা বাগেরহাট আর মংলা বন্দর। গাড়ি ছাড়িবে ভোর ৬ টায় , হেডস্যারের নিকট বলিবার জন্য তাঁহার বাড়ির সিংহদ্বারে আসিয়া দেখি তিনি এক খানা চাঁদর গায়ে জড়াইয়া গেটের নিকট পাইচারি করিতেছেন। আমাদিগকে দেখিয়া বলিলেন “আমি অনেক আগেই উঠে বসে আছি, “মহাশয় আসিয়া জয়নাল স্যার আর গাড়ির চালককে যে কতবার বলিলেন, “খবরদার গাড়ি ৫০ কিলোমিটারের অধিক গতিতে চালাবে না, আর জয়নাল তুমি এদের ছেড়ে কোথাও যাবে না, ওরা কিন্তু এবারের পরিক্ষার্থী, তোমার হাতে ওদের ছেড়ে দিলাম, সন্ধ্যা যেন না হয়।“ কথাগুলো আজিও আমার কর্ণকুহরে বাজিতে থাকে।
অত্যাধুনিক সাউন্ডসিস্টেমে জাতীয় সংগীত পরিবেশিত হইত, সহস্রাধিক ছাত্র বিশাল মাঠে উপস্থিত, আবদুল্লাহ আল মামুনের কখনো শফিউল মামার (এইচ এম শফিউল ইসলাম, এস এস সি- ৯৪, দৈনিক ইত্তেফাকের উপজেলা প্রতিনিধি ও নিরাপদ সড়ক চাই এর দক্ষিণ খুলনা অঞ্চলের সভাপতি) দরাজ কন্ঠে ঘোষিত হত “দল সোজা হও, শপথের জন্য প্রস্তুত হও – আমি শপথ করিতেছি যে, সর্বদা, মানুষের সেবায় নিয়োজিত থাকিব, দেশের সেবায় নিজেকে প্রস্তুত রাখিব……”জনাব সম্মুখে আসিয়া দাঁড়াইয়া দেখিতেন সমাবেশ ঠিকমত চলিতেছে কি না, সকল শিক্ষক উপস্থিত হইয়াছেন কি না। জাতীয় সংগীতের মাঝে কেহ হাসিল কি না, কাহার চুল দীর্ঘদিন নাপিতের কাচির অভাবে অধিক লম্বা হইয়াছে। এমন পরিলক্ষিত হইলে, উহাদের চুলগুলি জনাব নিজ হাতে এক অদ্ভুত ছাটে ছাটিয়া দিত, মালসা বা বাটি ছাট ছাড়া কোন নাপিত উহা আর মনুষ্য সমাজের উপযুক্ত করিতে পারিত না। সাদা শার্ট আর কালো প্যান্টের যে স্কুল ড্রেস পরিধান করিয়া ছাত্র সকল বিদ্যা দেবীর আরাধনা করেতি আসিয়া থাকে, উহা মহাশয়েরই আবিস্কার , আর তাহা প্রথম পরীক্ষামূলক প্রয়োগ হইয়াছিল আমাদের শরীরেই ।
প্রতিটি কক্ষে শব্দযন্ত্রের ব্যবস্থা করিয়াছিলেন, কোন নোটিশ প্রচারে জনাব নিজ কক্ষে বসিয়া শুধু বোতাম টিপিয়া কথা কহিলেই সবাই জানিতে পারিত। নোটিশ প্রচারের পূর্বে এক অতি সুমধুর সুর বাজিয়া উঠিত। উহা শুনিলেই সকলে নিস্তব্দ হইয়া যাইত। ছাত্রজীবনে উহা দৈববাণীর মত মনে হইত।
জনাব যে শুধু প্রশাসনিক কর্মে দক্ষ ছিলেন তাহা ভাবিলে পাঠক তাঁহার প্রতি অন্যায় করিবে নিশ্চয়। তাঁহার ইংরেজি গ্রামার শেখানোর দক্ষতা আর মার্চেন্ট অব ভেনিস পড়ানোর পক্কতা, সমসাময়িক অনেক প্রফেসরকেও হার মানাইতে পারিত। ইংরেজি সাহিত্যের একজন নগন্য ছাত্র হইয়া উহা আমি হলফ করিয়া বলিতে পারি। তাঁহার আদর্শে আদর্শিত হইয়াই শিক্ষাদানকে ব্রত হিসাবে বাঁছিয়া লইয়াছিলাম।
পাঠক, যে ক্ষণজন্মা বিদ্যাদেবের কথা বলিতেছি তিনি উক্ত বিদ্যালয়ের ৭ম প্রধান শিক্ষক, জনাব শেখ ইমাম উদ্দিন । আধুনিক বিনোদ্গঞ্জের (কপিলমুনি) স্থপতি স্বর্গীয় দানবীর রায় সাহেব বিনোদ বিহারী সাধু , বরেণ্য বিজ্ঞানী স্যার প্রফুল্ল চন্দ্র রায়ের (পি সি রায়) পরামর্শে ১৯২৬ সালে তাঁহার মাতার নামে প্রতিষ্ঠা করিয়াছিলেন দক্ষিণ বাংলার এই স্বনামধন্য বিদ্যাসরোবর। বিদ্যালয়টি উদ্বোধন করিতে আসিয়াছিলেন তৎকালীন কলিকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, রায়চাঁদ – প্রেমচাঁদ স্কলার, এশিয়াটিক রয়েল সোসাইটি, বিলেত এর সম্মানিত ফেলো, সি আই ই পদক প্রাপ্ত, শ্রীযুক্ত যদু নাথ সরকার, এম এ মহোদয় । ১৯২৬ সালে দুর্গম পথ পাড়ি দিয়া, প্রত্যন্ত অঞ্চলের একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয় উদ্বোধন করিতে আসিয়াছিলেন কলিকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, ইহা কি ভাবা যায়! শেখ ইমাম উদ্দিন ছিলেন সর্বজন শ্রদ্ধেয় প্রধান শিক্ষক শ্রীযুক্ত রাসবিহারী সাধুর স্থলাবিসিক্ত।
পাছে পাঠকের ধৈর্যচ্যুতি ঘঠে তাই নামটা বলিয়া দেওয়া আবশ্যক বলিয়া মনে করিলাম। কিন্তু উক্ত বিদ্যামন্দিরের সকল শিক্ষার্থী যে এতক্ষণে নাম না শুনিয়াই তাহা বুঝিতে পারিয়াছে সে বিষয়ে সন্দেহ নাই ।
উপরোক্ত ঘটনা গুলো বিদ্যা পিতা শেখ ইমাম উদ্দিনের সাথে এই অধমের স্কুল জীবনে ঘটিয়া যাওয়া কিছু অবিস্মরণীয় স্মৃতি। তাহার হস্তে গড়া প্রত্যেক ছাত্রের হৃদয়ে এমন স্মৃতি সর্বদাই জ্বলজ্বল করিতেছে। লিখিয়া প্রকাশ করিলে উহা কয়েকটি মহাকাব্য হইবে।
সম্রাট আকবরকে যে জ্ঞানে মোঘল সম্রাজ্যের দ্বিতীয় প্রতিষ্ঠাতা বলা হইয়া থাকে, সেই জ্ঞানে যদি এই বিদ্যাদেবীর প্রতিষ্ঠা পরবর্তি উন্নতি ও উতকর্ষের দিকে দৃষ্টি দেওয়া হয়, তাহা হইলে স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা , স্বর্গীয় রায় সাহেবের পরেই শেখ ইমাম উদ্দিনকে এই বিদ্যা মন্দিরিরের দ্বিতীয় প্রতিষ্ঠাতা বলিলে কিছু মাত্র ভুল হইবে না । একজন দিলে প্রাণ আরেক আনিলে শান । গোটা জীবনই তিনি ব্যয় করিয়াছেন এই প্রতিষ্ঠানের উন্নতি কল্পে। প্রতিটি ইট বালু কণায় মিশিয়া রহিয়াছে তাঁহার স্পর্শ। স্কুল প্রাঙ্গণে যে কইটি বহুতল ভবন পরিলক্ষিত হয়, প্রায় সবই তাঁহার হাতে গড়া। প্রশাসনিক ভবনের সংস্করণ, বিজ্ঞানাগার, ১নং একাডেমিক ভবনকে দ্বিতল করণ, ২ ও ৩ নং একাডেমিক ভবন, দৃষ্টিনন্দন শহীদ মিনার তাঁহার হস্তেই প্রতিষ্ঠিত হইয়াছে।
শহীদ মিনার প্রতিষ্ঠাকালে তিনি দুই টাকার নোট দেখিয়া ও দেখাইয়া বার বার রাজ মিস্ত্রি ফরিদের (মোঃ ফরিদ উদ্দিন, এলাকার স্বনামধন্য রাজমিস্ত্রি ) নকসায় ভুল ধরিতেন এবং তাহাকে চোখ রাঙাইয়া সংস্কার করাইতেন। কোমরে হাত ঠ্যাস দিয়া সতীর্থ অজয় (অজয় কুমার ঘোষ, সহকারী উপজেলা সমবায় পরিদর্শক। এস এস সি ৯৪) তাহা অবলোকনের নিমিত্তে ক্লাস অবসরে মাঝে মাঝে সেইখানে পৌঁছুনো মাত্র জনাবের বজ্র নিনাদে, পড়ি কি মরি করিয়া ছুটিয়া আসিয়া কর্দমাক্ত অবস্থায় কন্ঠগত নিঃশ্বাস লইয়া, শহীদ মিনারের বর্তমান অবস্থা ও তাহা পরিদর্শনে তাহার দুরবস্থার কথা বর্ণনা করিয়া, মা কালীর দিব্যি দিয়া সেই দিকে আর জীবনে পদার্পন না করিবার পণ করিয়া বসিত।
দায়িত্বে থাকা অবস্থায় মহোদয়ের সাথে শেষ দেখা হইয়াছিল ১৯৯৭ সালে তাহার বাসস্থানে, সাথে মামা, সতীর্থ শফিউল ইসলাম। বিশ্ববিদ্যালয়ে কোন বিষয়ে স্নাতক করিব, ইংরাজি সাহিত্য না রাষ্ট্রবিজ্ঞান তাহা নিরুপণের নিমিত্তে পিতার আদেশে মহোদয়ের সাথে সাক্ষাৎ। সর্বশুনিয়া মহোদয় সিদ্ধান্ত দিলেন -ইংরাজি রাজার ভাষা, উহা ছাড়া যাইবে না। পিতা শুনিয়া কহিল উহা দৈববাণী , সংশয় থাকিলে বিদ্যার্জন রহিত কর। সেই হইতে জীবন করিলাম বিসর্জন, রাজ ভাষা করিতে অর্জন।
সেই প্রথম আর সেই শেষ, মহোদয়ের সম্মুখে চেয়ারে বসিয়া বাক্যালাপ করিলাম। কিন্তু সেইদিন সেই ইমাম উদ্দিনকে আর পাইলাম না। তাঁহার কথায় সেই তেজের বদলে খেদ পাইলাম। তাঁহার কথায় বুঝিলাম, তাঁহার এই বিদ্যা সংসার সাজানো শেষ হইয়াছে, তাই তাঁহার প্রয়োজনও ফুরাইয়াছে। এখন তাঁহার ছুটির সময় আসিয়াছে, মহোদয়ের সাথে ২০০৯ সালে ঢাকাস্থ পাইকগাছা সমিতির ইফতার মাহফিলে শেষ দেখা হইয়াছিল। কদমবুচি করিয়া নাম নিবেদন করিলে মহোদয় চিনিতে পারিলেন না। পিতার নাম উন্মোচন করিবা মাত্র স্নেহে মাথায় হাত বুলাইয়া, অযাচিতভাবে পৃথিবী সূর্যের চারিদিকে ঘুরিয়া উভয়ের বয়স বৃদ্ধি, আর তাঁহার স্মৃতি শক্তির প্রতি অভিযোগ করিয়া প্রাণ খুলিয়া আশির্বাদ করিলেন। ইহাই ছিল এই অধমের প্রতি বিদ্যাপিতার শেষ আশির্বাদ।
বেতের বাড়ি খাইয়া কেহ স্বীকার করিত না পাছে সম্মান হানি হয়, আর এখন কবে কে ক’টা সেই অমৃত আস্বাদন করিয়াছিল তাহা লইয়া আত্ম-অহংকার করিয়া থাকে। বিতন্ডা করিয়া নিজের শরীরে বাড়ির সংখ্যা গুণিয়া গর্ব করিয়া লয়। অজয় কহিল আমা হইতে তাঁহার শরীরে বেতের দাগ বেশি অঙ্কিত হইয়াছিল, শুনিয়া মনে ক্লেশ জন্মাইলো। ঐ বেতের বাড়ির মধ্যে যে কি পরিমান স্নেহ আর আশির্বাদ লুকাইয়া ছিল, তাহা স্কুল ছাড়িবার পূর্বে মনে করি কেহ অনুধাবন করিতে পারে না। বিদায় অনুষ্ঠানে মহাশয়ের ক্রন্দন দেখিয়া ১৪৮ জন পরীক্ষার্থী নয়নের জল আটকাইতে পারিল না। সমস্ত কক্ষে যেন ক্রন্দনের ধুম পড়িয়া গেল। জনাব যখন কহিলেন “সবাই আমার প্রিয় কিন্তু কেউ কেউ অত্যন্ত কাছের“ তখন কয়েকজন ডুকরে কাঁদিয়া উঠিল যাহার রেশ কাটিতে ঘন্টা খানেক লাগিল। এই অধম সেই ডুকরানোর একজন হইতে পারিয়া আজিও গর্বে তৃপ্ত হইতে পারি।
‘যে দেশে জ্ঞানের কদর নাই, সেই দেশে জ্ঞানী জন্মায় না ‘সকলের কথা জানি নে, আমার মনে হয় মহাদেবের সঠিক কদর আমরা করিতে পারি নাই। শেষ সময়ে তিনি মনে খেদ লইয়া তাঁহার হাতে গড়া বিদ্যা তীর্থ ত্যাগ করিয়াছেন। আর নতুন প্রজন্ম হয়ত জানিবেই না তাঁহার কীর্তির কথা। আমরা কি পারিনা এই মহা গুরুর নামে তাঁহার হাতে গড়া অন্তত একটি একাডেমিক ভবনের নামকরণ করিতে ? হয়ত এই নামের জন্যই তাঁহাকে ভবিষ্যৎ প্রজন্ম চিনিবে। তাহা হইলে এই বিদ্যাদেবের প্রতি তাঁহার ভক্তকুলের কিছুটা ঋণ শোধ হইবে বলিয়া আমার মনে হয়।
দেশে ও দেশের বাহিরে, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানের দায়িত্ব পালন কালে কাকের ময়ূর সাজের মত তাঁহার পদচিহ্ন অনুসরণ করার বৃথা চেষ্টা করিয়াছি। না পারিলেও তাঁহার আদর্শ গাঁথা শুনাইয়াছি শিক্ষার্থীদের। বুনিয়াছি তাহাদের হৃদয়ে ঈমাম উদ্দিন হওয়ার স্বপ্ন।
” বিনম্র শ্রদ্ধা জানাই –
হে বিদ্যাপিতা তোমার স্মরণে ।
আছো লক্ষ হৃদয় রাজ্যে ,
ক্ষয় নাই মরনে ।“
এই লেখায় তথ্য উপাত্ত দিয়ে সহযোগিতা করেছেন-
কামরুজ্জামান প্রিন্স (প্রধান শিক্ষক, শেখ ইমাম উদ্দিন মহদয়ের একমাত্র পুত্র, এস এস সি- ১৯৮৪, বোর্ড মেধা তালিকায় ৪র্থ স্থান অর্জনকারী। জেনুইটি সিস্টেমের কর্পোরেট প্রধান হিসাবে দায়িত্বরত ) এডভোকেট দিপঙ্কর কুমার সাহা (এস এস সি- ৯১, বিনোদ স্মৃতি সংসদের প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি ) শেখ আবদুল্লাহ আল মামুন (এস এস সি- ৯৩, স্কুল স্কাউট দলের সাবেক স্বনামধন্য পেট্রোল লিডার, লিডস কর্পোরেশনে এ জি এম পদে কর্মরত) এইচ এম শফিউল ইসলাম (এস এস সি- ৯৪, দৈনিক ইত্তেফাকের উপজেলা প্রতিনিধি ও নিরাপদ সড়ক চাই এর দক্ষিণ খুলনা অঞ্চলের সভাপতি ) এইচ এম শামীম আহমেদ (সিনিয়র সেকশন অফিসার, কপিলমুনি কলেজ, এস এস সি ৯৪ ) অজয় কুমার ঘোষ (সহকারী উপজেলা সমবায় পরিদর্শক , এস এস সি ৯৪ ) তাঁদের প্রতি আমি আন্তরিক ভাবে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।“
উৎসর্গঃ     শেখ আবদুল্লাহ আল মামুন, যার উৎসাহে এ পথে হাঁটা ।
জি এম আমিনুল ইসলাম
গুলশান, ঢাকা
১২ জুন ২০২০
২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

অন্যকে জানাতে শেয়ার করুন

আরও পড়ুন

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
সুস্থ
মৃত্যু

বিশ্বে

আক্রান্ত
সুস্থ
মৃত্যু