আজ || বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২
শিরোনাম :
  আমন মৌসুমে ব্রী ধান ৭৫ জাতের আগাম রোপণে সাফল্য পেয়েছে কৃষক রফিকুল       তালায় সামাজিক সম্প্রতি ও দুধে ভেজাল প্রতিরোধে শীর্ষক আলোচনা       সাতক্ষীরায় মাল্টি স্টেকহোল্ডার কোঅডিনেশন কমিটির ত্রৈমাসিক সভা       বিশ্ব জলাতঙ্ক দিবস উপলক্ষে সাতক্ষীরায় আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত       সাতক্ষীরা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে শেখ হাসিনার জন্মদিন পালন       তালায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৬তম জন্মদিন পালিত       তালায় জেন্ডার ভিত্তিক সহিংসতা নির্মূল করণে প্রশিক্ষণ       তালায় আন্তর্জাতিক তথ্য অধিকার দিবস পালিত       তালায় জুয়া খেলার সময় ৭ জুয়ারী আটক       তালায় জাতীয় মহিলা সংস্থা উদ্যোগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৬তম জন্মদিন পালিত    
 


আর কতদিন না খেয়ে থাকলে খাবার পাবে শাহাজাতপুরের সিরাজ?

নাম মোঃ সিরাজ খাঁ।গ্রাম দক্ষিন শাহাজাতপুর। বয়স ৭৯ বছর। শরীরের এই অবস্থায় পেশা হিসেবে নিয়েছিলেন ভিক্ষাবৃত্তি। করোনার কারনে সেই পেশাও আজ নেই তার কাছে। গ্রামের বাড়ি কয়রা উপজেলার নারানপুরের গুগরিকাটি। বর্তমান থাকেন মেয়ের শ্বশুর বাড়ি।
খেশরার ভোটার হিসেবে ৩৫ বছর ভোট দিচ্ছেন এ এলাকার জনপ্রতিনিধিদের। তবুও সহযোগীতা, সহানুভূতি কোনটাই নেই তার প্রতি এই জনপ্রতিনিধিদের। ভোটের সময় এলে কদর বাড়ে তার। ভোট চলে গেলে একদিনের জন্যেই কেউ যায়নি তার বাড়ি।সে কেমন আছে,কিভাবে দিন পার করছে তার কোনটাই খোজ নেয়নি এখানকার সুশীল সমাজ।এমনটাই বলছিলেন এই সিরাজ খাঁ। সিরাজ খাঁ একজন প্রতিবন্ধী। সাথে বধিরও। এক কথা দুই তিন বার বলার পরে শুনতে পান তিনি।তিনি বলছিলেন তার দুঃখের কথা। থাকেন জামাইয়ের বাড়ি,কোন দিন খেয়ে, কোন দিন না খেয়ে।
এমন ভাবে কাটে তার এই বৃদ্ধ জীবন যাপন। খোঁজ পাওয়ার পর তার বাড়িতে গেলে তিনি এই প্রতিবেদকে বলেন,আমি মুরি(মারা) গেলি কি তাই তুমরা (তোমরা) আমাকে ত্রান দুবা (দিবা)? আমি না খেয়ি (খেয়ে) মুরি(মারা) যাচ্ছি।
কোন চেয়ারম্যান, মেম্বর আমাকে কিছুই দেয় নি।এই কি ভাইরাস আইছে(এসেছে) তাতে আমি বাড়ে থেকে বের হতে পারছি না।কেউ আমাকে খাবার দেচ্ছে না।আমি কি করে এখন প্যাট(পেট) চালাবো আল্লাহ ছাড়া আর কেউ জানে না। সংসারের অভাব অনাটনে কথা হয় তার জামাইয়ের সাথে।
তিনি বলেন,আজ ৩৫ বছর ধরে উনি আমার এখানে আছেন।আমি তাকে দেখা শুনা করি।করোনার কারনে আমিও কর্মক্ষেত্রে যেতে পারছি না। সংসার চালাতে বড় কষ্ট হচ্ছে।আমার শ্বশুরের একটা প্রতিবন্ধী কার্ড ছাড়া কোন কার্ড নেই।অন্তত এই বিপদের সময়ও যদি তার একটা ব্যবস্থা হতো তাহলে খুব ভালো হতো।
তার সম্পর্কে পার্শ্ববর্তী বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ আমিনুল ইসলাম বলেন,তিনি খুব অসহায় মানুষ।ভিক্ষাবৃত্তি করে জীবন যাপন করেন।এসময়ে এলাকায় তার মতো অসহায় আর কেউ নেই।উপজেলা নির্বাহী কর্মকতা উনাকে যেন কিছু খাবারের ব্যবস্থা করেন তার জন্য আমি সবিনয়ে অনুরোধ জানাচ্ছি।


Top